মেনু নির্বাচন করুন

এক নজরে ময়মনসিংহ বিভাগ

এক নজরে ময়মনসিংহ বিভাগ

১। ময়মনসিংহ বিভাগ সৃষ্টিঃ

ময়মনসিংহ অষ্টম প্রশাসনিক বিভাগ। ১৮২৯ সালে ঢাকা বিভাগ প্রতিষ্ঠার সময় থেকে ২০১৫ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চল ঢাকা বিভাগের অংশ ছিল। ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ঢাকা বিভাগ ভেঙ্গে নতুন ময়মনসিংহ বিভাগ গঠনের ঘোষণা দেন। পরবর্তীতৈ ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ, জামালপুর, শেরপুর ও নেত্রকোনা জেলা নিয়ে ময়মনসিংহ বিভাগ গঠিত হয়।

২। ময়মনসিংহ নামকরণ:  

শিক্ষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের সূতিকাগার বৃহত্তর ময়মনসিংহ বিস্তীর্ণ জনপদ। এর ভৌগলিক পরিবেশ বিচিত্র হওয়ায় এই অঞ্চলের মানুষের সামাজিক জীবন, চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য, জীবিকা ও সংস্কৃতি বৈচিত্র্যপূর্ণ। প্রবাদ আছে ‘হাওর, জঙ্গল, মহিষের শিং; এ নিয়ে ময়মনসিং’। জেলার নাম ময়মনসিংহ নিয়ে ইতিহাসবিদদের মাঝে ভিন্ন মত প্রচলিত আছে। ষোড়শ শতাব্দীতে বাংলার স্বাধীন সুলতান সৈয়দ আলাউদ্দিন হোসেন শাহ তাঁর পুত্র সৈয়দ নাসির উদ্দিন নসরত শাহ’র জন্য এ অঞ্চলে একটি নতুন রাজ্য গঠন করেছিলেন। সেই থেকেই নসরতশাহী বা নাসিরাবাদ নামের সৃষ্টি। মহুয়া-মলুয়ার দেশ ময়মনসিংহের পূর্ব নাম ছিল নাসিরাবাদ। ১৭৭৯-তে প্রকাশিত রেনেল এর ম্যাপে মোমেসিং নামটি বর্তমান ’ময়মনসিংহ’ অঞ্চলকেই নির্দেশ করে। তার আগে আইন-ই-আকবরীতে ‘মিহমানশাহী’ এবং ‘মনমনিসিংহ’ সরকার বাজুহার পরগনা হিসাবে লিখিত আছে; যা বর্তমান ময়মনসিংহকেই ধরা যায়। মোগল আমলে মোমেনশাহ নামে একজন সাধক ছিলেন, তাঁর নামেই মধ্যযুগে অঞ্চলটির নাম হয় মোমেনশাহী। কালের বিবর্তনে এটি ‘ময়মনসিংহ’ নামে পরিচিতি পায়।

৩। ময়মনসিংহ বিভাগের ভৌগলিক অবস্থান ও সীমানাঃ

ময়মনসিংহ বিভাগ ২৪১০“  উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০২৫ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত। ময়মনসিংহ বিভাগের উত্তরে ভারতের মেঘালয় রাজ্য, দক্ষিণে ঢাকা বিভাগ, পূর্বে সিলেট বিভাগ, পশ্চিমে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ অবস্থিত। এ বিভাগের প্রধান নদ নদীগুলো হলো  পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, সুতিয়া, কংশ, সোমেশ্বরীনিতাইযমুনাব্রহ্মপুত্রকংসভোগাই ইত্যাদি।

৪। প্রশাসনিক তথ্যঃ

জেলা

আয়তন

(ব:কি:মি:)

উপজেলা

সিটি কর্পোপৌরসভা

ইউনিয়ন

জনসংখ্যা

ভোটার

সংসদীয় আসন

সংরক্ষিত মহিলা আসন

ময়মনসিংহ

৪৩৬৩.৪৮

১৩

১১

১৪৬

৫৩,১৩,১৬৩

৩৫,৯৪,৪৯৩

১১

০১

জামালপুর

২০৩১

০৭

০৭

৬৭

২৩,৮৪৮১০

১৫,৯৭,২৫৫

০৫

০২

নেত্রকোণা

২৭৯৪

১০

০৫

৮৬

২২,০৭,০০০

১৪,৬৬,১১৬

০৫

০০

শেরপুর

১৩৬৩.৭৬

০৫

০৫

৫২

১৫,৪২,৬১০

৯,৯২,১৯১

০৩

০১

সর্বমোট

১০,৫৫২

৩৫

২৭

৩৫১

,১৪,৪৭,৫৮৩

৭৭,১২,৩৫৯

২৪

০৪

৫। মৌলিক তথ্যাবলীঃ


বিভাগের প্রশাসনিক কার্যক্রম

০৩/১২/২০১৫ খ্রি.


জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার

১.৩৪ % (জাতীয়- ১.৩৭ %)


জনসংখ্যার ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কি.মি.)

১২৭৩ জন


শিক্ষার হার

৪০.৯১%


জনগোষ্ঠির প্রধান পেশা

কৃষি (৬৫.৭ %)


দারিদ্র্যের হার

৩২.৭৭ % (জাতীয়- ২৪.৩৩ %)

সর্বনিম্ন- ভালুকা, ১৫.৫ % এবং সর্বোচ্চ- দেওয়ানগঞ্জ, ৬৩.২ %


সীমান্তবর্তী উপজেলার সংখ্যা

০৯ টি


ভারতের সাথে সীমান্তের দৈর্ঘ্য

১৯২.১ কি.মি


বি.ও.পি’র সংখ্যা

৩৪ টি


প্রাথমিক শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার

১১.৩১%


গড় তাপমাত্রা

২৯.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস


নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠি

০৫ লাখের অধিক, গারো, হাজং, কোচ, বর্মণ, রাজবংশী (আনুমানিক ১৭ ধরনের নৃগোষ্ঠী)


অর্থনৈতিক অঞ্চল

০২টি


শিল্প কারখানা

 ৮২১৩ টি


মেডিক্যাল কলেজ

০৪টি



৬। রাজস্ব সম্পর্কিত তথ্যাবলীঃ

মৌজা

৫১১৪টি

খাস জমির পরিমাণ (কৃষি)

১২১৬৯২.৬০

বন্দোবস্তযোগ্য খাস জমি (কৃষি)

৫২৭৯৪.৮৭

বন্দোবস্তকৃত খাস জমি (কৃষি)

৫৭৭৫.৪৯

খাস জমির পরিমাণ (অকৃষি)

৮২৪৩৬.৬

বন্দোবস্তযোগ্য খাস জমি (অকৃষি)

২০৯৫.২৭

বন্দোবস্তকৃত খাস জমি (অকৃষি)

২৯,৬৫৭.৩৫৭

অর্পিত সম্পত্তির পরিমাণ

২৪২৬৪.৪৩

 হাট বাজার

৯২৪

জলমহাল ও বালুমহাল

২০ একরের উর্ধ্বে ২০১টি, ২০ একর পর্যন্ত ৫৫৩টি,  বালুমহাল ১৪টি

বীর নিবাস প্রকল্প

৪১৩ টি

 



৭। কৃষি সম্পর্কিতঃ

জেলার নাম

চাষযোগ্য ফসলি জমি

(হেক্টর)

খাদ্যশস্য চাহিদা

(মেট্রিক টন)

খাদ্যশস্য উৎপাদন

(মেট্রিক টন)

কৃষক পরিবার সংখ্যা

প্রধান প্রধান ফসল

ময়মনসিংহ

৩,৩২,৭৩৭

৮,৭৮,৫০৫

১৭,৯৪,৩৬৪

৯,৬৭,১৬২

ধান, আলু, পাট, বেগুন, ভূট্টা, গম, সবজি ইত্যাদি

জামালপুর

১,৬৩,০৩৪

৪,৪০,৯৯২

৯,৭৭,৩০৫

৫,১৮,৯৪৬

নেত্রকোণা

২,১৭,১৯৩

৩,৮১,৯১৪

১০,৭৪,১১০

৪,৫১,৭৬৫

শেরপুর

১,০৬,৫৪৪

২,৫৫,০৬২

৫,০৮,২২৪

৩,৬৯,৯৫০

মোট

৮,১৯,৫০৮

১৯,৫৬,৪৭৩

৪৩,৫৪,০০৩

২২,৬৫,৩৫০

৮। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি

জেলার নাম

বয়স্ক ভাতা

বিধবা ও স্বামী পরিত্যাক্তা ভাতা

মাতৃত্বকালীন ভাতা

ভিজিডি ভাতা

মা ও শিশু ভাতা

তৃতীয় লিঙ্গ ভাতা

প্রতিবন্ধী ভাতা

ময়মনসিংহ

২৩২৯৩৪

১০৩০১৫

১৫৫৭৩

৩৫০২৪

২০৭৩২

৭৭

৭২৮২৫

নেত্রকোণা

১২৫৪৩০

৬৮৭১৬

১৬৪০২

১৬৬৩৬

২০৮১

৩৪

৩১২১৮

জামালপুর

১২৩২২৩

৫৮৮৩৪

১০৯৫৫

২০৮৭১

২১৮২

৭৫

৩২৪২০

শেরপুর

৭১৪৫১

৩৮২১২

৬৭৮০

১১৪৮৩

৪৮২৬

১৩

১৮৪৫৯

মোট

৫,৫৩,০৩৮

২,৬৮,৭৭৭

৪৯,৭১০

৮৪,০১৪

২৯,৮২১

১৯৯

১,৫৪,৯২২

৯। শিক্ষা সংক্রান্ত তথ্য:

ক্রমিক

প্রতিষ্ঠানের নাম

ময়মনসিংহ

জামালপুর

নেত্রকোণা

শেরপুর

মোট

০১

বিশ্ববিদ্যালয়

০২

০১

০১

-

০২

মেডিকেল কলেজ

০2

০১

০১

-

০৩

পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট

01

01

-

01

3

০৪

ক্যাডেট কলেজ

01

-

-

-

1

০৫

কলেজ

62

42

33

29

166

০৬

সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ

02

-

-

-

2

০৭

উচ্চ বিদ্যালয়

573

355

261

181

1370

০৮

মাদ্রাসা

385

175

90

103

753

০৯

প্রাথমিক বিদ্যালয়

২১৪০

১১৬১

১৩১৪

৭৪১

৫৩৫৬

১০। উন্নয়ন প্রকল্প সংক্রান্ত তথ্য:

বিভাগের নাম

চলমান প্রকল্প সংখ্যা

টাকা (কোটি)

গণপূর্ত অধিদপ্তর

৪২

২২৫৭

সড়ক ও জনপথ সার্কেল

২২

১০৩৭

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর

৩৬

২৮৪

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর

১৪

২৩২০

পানি উন্নয়ন বোর্ড

০৬

৯৯৫

স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর

১৯

১৯১

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর

17

320

মোট

১৫৬

৭৪০৪ কোটি

১১। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তথ্য:

জেলার নাম

ভাতাভোগী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা

ময়মনসিংহ

৬৩৬৩

নেত্রকোণা

৩৪১৪

জামালপুর

২৫০১

শেরপুর

১৬৫০

১২। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্থান:

ময়মনসিংহ

বড়বাজার কালিবাড়ী, ডাকবাংলো,  কেওয়াটখালী রেলওয়ে কলোনী. নিউমার্কেট, কাচারিঘাট, সাহেবপাড়া

জামালপুর

ধানুয়া কামালপুর, ব্রহ্মপুত্র নদের তীর শ্মশানঘাট, পৌর এলাকার ফৌতি গোরস্থান, সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের ডিগ্রি হোস্টেল, পিটিআই ওয়াপদা রেস্ট হাউস, জিল বাংলা চিনি কল, ইসলামপুরের কুলকান্দি খান পাড়া।

নেত্রকোণা

ঘাঘটিয়া নদীর তীর, মগরা নদী সেতু, কলমাকান্দা  নাজিরপুর, মোহনগঞ্জ বটতলী, নেত্রকোণা নাগরা কৃষি ফার্ম, মুক্তাপাড়া ব্রীজ, চল্লিশা রেল সেতু ইত্যাদি।

শেরপুর

ঝিনাইগাতির আহমদ নগর, বগাডুবি ব্রীজ, জগৎপুর গ্রাম, নাকুগাঁও, নালিতাবাড়ী তন্তর, কাটাখালি ব্রীজ, সোহাগপুর, সূর্যদি গ্রাম, রামচন্দ্রকুড়া ফরেস্ট ক্যাম্প, শেরিব্রীজ ইত্যাদি।

১৩। ময়মনসিংহ বিভাগের দর্শনীয় স্থানঃ

ময়মনসিংহঃ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, আলেকজান্ডার ক্যাসেল, জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা, কবি নজরুলের স্মৃতিময় ত্রিশালের দরিরামপুর, গোপালপুর জমিদারবাড়ি, বিপিন পার্ক, বোটানিক্যাল গার্ডেন, ব্রক্ষপুত্র নদ, গৌরীপুর রাজবাড়ি, কেল্লা তাজপুর ইত্যাদি।

জামালপুরঃ  হয়রত শাহ জামাল (রাঃ) ও হয়রত শাহ কামাল (রাঃ) এঁর মাজার শরীফ, দয়াময়ী মন্দির,  লাওচাপড়া পিকনিক স্পট, যমুনা ফার্টিলাইজার, লুইস পার্ক ইত্যাদি।

নেত্রকোণাঃ হয়রত শাহ সুলতান কমর উদ্দিন রুমী (রাঃ) এঁর মাজার শরীফ, বিজয়পুর পাহাড়ে চিনামাটির নৈসর্গিক সৌর্ন্দয্য, টংক আন্দোলনের স্মৃতি সৌধ, রানীখং মিশন টিলাতে ক্যাথলিক গির্জা, বিরিশিরি কালচারাল একাডেমি, কমলা রানীর দীঘি,রাশমনি স্মৃতি সৌধ,সাত শহীদের মাজার ইত্যাদি।

শেরপুরঃ গজনী অবকাশ কেন্দ্র, মধুটিলা ইকো পার্ক, অর্কিড পর্যটন কেন্দ্র, নাকুগাঁও স্হল বন্দর ইত্যাদি।

১৪। ময়মনসিংহ বিভাগের সম্ভাবনাঃ

  • শেরপুর-মেঘালয় সীমান্তকে বাণিজ্যবান্ধব করে শিল্পকারখানা স্থাপন
  • রেলপথবিহীন শেরপুরে রেল যোগাযোগ স্থাপন
  • নেত্রকোনায় ইকো-ট্যুরিজম, গারো পাহাড় এবং ময়মনসিংহ গাবরাখালি পর্যটন শিল্প
  • জামালপুরের নকশী কাঁথা
  • হালুয়াঘাটের গোবড়াকুড়া ও কড়ইতলী স্থল বন্দর সম্পূর্ণভাবে চালুকরণ
  • নেত্রকোনার বিজয়পুরে চীনামাটির সর্বোত্তম ব্যবহারে সিরামিক শিল্প প্রতিষ্ঠা
  • ময়মনসিংহে ইপিজেড প্রতিষ্ঠা ও শিল্প পার্ক স্থাপন
  • ময়মনসিংহে সাংস্কৃতিক পল্লী স্থাপন